নিজের পায়ে দাঁড়ানোর জন্য কিছু ব্যবসার ধারণা

এই পোস্টে দেয়া ব্যবসার আইডিয়াগুলো কোন ইউনিক আইডিয়া না। কিন্তু নিজের মেধা আর ক্রিয়েটিভিটি দিয়ে এগুলো দিয়েই উন্নতি করা সম্ভব। চাকরির পিছনে হন্যে হয়ে না ঘুরে নিজেই উদ্যোক্তা হোন- ব্যবসা করুন। হালাল উপার্জন করুন। পোস্ট থেকে বেছে নিন আপনার উপযুক্ত কোন ব্যবসা। সবার জন্য শুভকামনা।

১) কাপড়ের ব্যাগঃ

প্রাথমিক পুঁজিঃ ১০০০০/-

২) কাগজের ব্যাগঃ

প্রাথমিক পুঁজিঃ ১০০০০/-

৩) স্ক্রিন প্রিন্টঃ ব্লক প্রিন্ট, বাটিক, টাই-ডাই ইত্যাদির পাশাপাশি বর্তমানে কাপড় ছাপার অন্যতম জনপ্রিয় মাধ্যম হচ্ছে স্ক্রীন প্রিন্ট। স্ক্রীন প্রিন্টের সবচেয়ে বড় সুবিধা হল শুধু কাপড়ই নয়, কাগজেও ছাপা বা প্রিন্ট করা যায়।

প্রাথমিক পূঁজিঃ ১০০০০-১৫০০০/-

৪) চক তৈরিঃ 

প্রাথমিক পূঁজিঃ ১০০০০/-

৫) গোলাপ জলঃ

প্রাথমিক পূঁজিঃ ১০০০০/-

৬) প্লাস্টিকের খেলনা তৈরিঃ

পূঁজিঃ ১০০০০০/-(এক লক্ষ টাকা)

৭) প্যাকেজিং বা কাগজের বাক্সঃ 

প্রাথমিক পূঁজিঃ ২৫০০০-৩০০০০/-

৮) চানাচুরঃ

প্রাথমিক পূঁজিঃ ২০০০০-৩০০০০/-

৯) মাটির গহনাঃ

প্রাথমিক পূঁজিঃ ৫০০০/-

১০) তরল সাবান (থালা বাসন ধোয়ার)ঃ

প্রাথমিক পূঁজিঃ ৫০০০০/-

১১) কাপড় কাচার সাবানঃ

প্রাথমিক পুঁজিঃ ৫০০০০/-

১২) গুড়া মশলাঃ 

এটা দুইভাবে করা যেতে পারে-
ক) দোকান থেকে মশলা ভাঙ্গিয়ে প্যাকেটজাত করা। প্রাথমিক পূঁজিঃ ২০০০০/-
খ) নিজেই মশলা ভাঙ্গানোর কারখানা দেয়া। পূঁজিঃ ৩০০০০০/-

এছাড়াও অতি অল্প পূঁজিতে বিভিন্ন আচার, টমেটো কেচাপ তোইরি করে ব্যবসা করতে পারে,
১)জলপাই
২)আম
৩)বড়ই
৪)টমেটো কেচাপ
৫) আলুর চিপস
৬) কাচা কলার চিপস
৭)পেয়ারার জেলী
৮)তেতুলের আচার
৯) রশুনের আচার

Written By
More from uddoktahub

বাণিজ্যিক ভিত্তিতে সবজির চারা উৎপাদন

বাণিজ্যিক ভিত্তিতে সবজির চারা উৎপাদন বেশ লাভজনক একটি পেশা। এতে অতি অল্প...
বিস্তারিত পড়ুন...

Leave a Reply