আবাসিক এলাকায় গরুর খাঁটি দুধ সরবরাহ করে মাসিক লাখ টাকা আয়।

স্বল্পপূঁজিতে আবাসিক এলাকায় গরুর খাঁটি দুধ সরবরাহ করে পরিবারের সকলের খাবারে সঠিক পুষ্টিমান পেতে সহায়তা করে মাসিক লাখ টাকা আপনি আয় করতে পারেন বাস্তবিকভাবেই।
খামার এলাকাগুলো থেকে আবাসিক এলাকায় গরুর দুধের দামের পার্থক্যটিকে পূঁজি করে এ ব্যবসাটি আপনি করতে পারেন। শহর এলাকায় মানুষজন সরবরাহকারিকে কাছে না পেয়ে, ব্যস্ততায় বাজারে গিয়ে দুধ দেখে-বুঝে নেওয়ার ঝামেলা থেকে বাঁচতে, গরুর দুধ নাগালে না পেয়ে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের মোড়কীকরণ দুধের উপর নির্ভর করতে বাধ্য হচ্ছেন।
ঢাকায় গাবতলি পার হয়ে গ্রামের দিকে গিয়েই আপনি গরুর দুধ পাবেন ৩৫-৪০ টাকা দরে। ঢাকায় তা সহজেই বিক্রয় করতে পারেন ৭০-৮০ টাকায়। কঠিন কাজটি হবে খুব ভোরে আপনাকে দুধ সংগ্রহ করে ঢাকায় নিয়ে আসতে হবে আর বেঁচতে হবে। এখানে যে কৌশলটি আপনাকে লাভবান ব্যবসা দিতে পারে তার একটি নমুনা হতে পারে এমন– একদিন যথেষ্ট সময় নিয়ে ভোর সকালে বেরিয়ে যাবেন দুধের সন্ধানে, কতোটা দামে তা নিয়ে আসতে পারবেন আপনার এলাকায় তার হিসেব-নিকেষ করুন।-ঐ এলাকা থেকে যে ভ্যানগুলো সকালে ঢাকা সে তাদের সাথে নির্দিষ্ট সময়ের চুক্তি করলে তারা কম ভাড়াতেই এনে দিতে রাজি হতে পারে। -২০ লিটার গরুর দুধ কিনে এলাকায় চলে আসুন, আধা লিটারের পানির খালি বোতলে ভরে আপনার পূর্বে নির্দিষ্ট করা এলাকায় ৪০টি বাসায় এগুলো নিয়ে দিয়ে আসুন, বলুন “আগামী সপ্তাহ থেকে প্রতি অমুকবারে (শুক্রবার বা যে কোন একটি বারে) এই এলাকায় আমরা গরুর খাঁটি দুধ সরবরাহ করব। এটি দুধের নমুনা, এই আমাদের ঠিকানা-মুঠোফোন নম্বর, আপনি জানালেই পেয়ে যাবেন ৩/৫/৮ লিটার দুধ- এক সপ্তাহের দুধ একসাথে। ঢাকার বাইরে বা অন্যান্য থানা শহরে রেফ্রিজারেশনের ব্যবস্থা সব বাসায় নেই মনে হলে ২ লিটার বোতলও করতে হতে পারে।-আপনার লক্ষ্য যদি হয় প্রতি শুক্রবারে ৪০-৫০টি বাসায় ৩-৫ লিটার করে ২০০ লিটার এর ফরমায়েস নেবেন তাহলে তা না হওয়া পর্যন্ত বিপণন কাজ চালিয়ে যাবেন। এতে আপনার যাবতীয় খরচ বাদে প্রতি লিটারে ২০ টাকা করে লাভ রাখতে পারলে একদিনের আয় হবে ৪,০০০ টাকা।-সপ্তাহের একেকটি বারের জন্য ৪০-৫০টি পরিবারের সাথে চুক্তি করে যেতে পারলে প্রতিদিনই আপনার এ ব্যবসাটি হতে পারে।-সকাল ৯টার মাঝে ঢাকায় দুধ নিয়ে আসতে পারলে ২-৩ ঘন্টায় তা দেওয়া ও টাকা সংগ্রহ করতে হবে। দুইজন বা ততোধিকজনে একসাথে ব্যবসাটি করতে পারলে ভালো হয়- দায়িত্ব ভাগ করে নিয়ে প্রত্যেকে এর জন্য ৪-৫ ঘন্টা দিলেই হয়ে যায়। -দুধ যেন নষ্ট না হয়; দুধ প্রদান, টাকা উত্তোলন, খালি বোতল সংগ্রহ ও ভালোভাবে পরিস্কার করা-এসব বিষয়ে একটু গবেষণা করুন আর অভিজ্ঞদের পরামর্শ নিন।
# পূঁজিঃ সর্বোচ্চ ২০-৪০ হাজার টাকা। # মাসিক ৩০ হাজার থেকে ১ লাখ বা আরোও বেশি।

Written By
More from uddoktahub

ক্যাটারিং (খাদ্য সরবরাহ ব্যবসা) হতে পারে উদ্যোক

ক্যাটারিং বা খাদ্য সরবরাহ ব্যবসায় রান্না ও বণ্টনের জন্য জায়গার প্রয়োজন হয়।...
বিস্তারিত পড়ুন...

Leave a Reply